We want people 2 Understand, there is a huge difference between punishment & reinforcement

0 have signed. Let’s get to 200!


"Specified Tarkata"

একটি মিজ পেজ, মানুষ ক্ষেপে উঠেছেন বারবার, তুলেছেন একেরপর এক পিটিশান, এফ আই আর, report,

কিন্তু, হয় না! পেজ উঠে যায়, নতুন পেজ আসে, বক্তব্য ছড়িয়ে যায়, যে পেজের অ্যাডমিন চালাক এবং শিক্ষিত তারা বেঁচে যায়, দুর্বলরা ঢুকে যায় ক্রিমিনাল তকমায়?

অপমান করছে এরা মনিষীদের? মানুষ মনিষীদের সম্মানের জন্যে কতটুকু করছে।

থাক সে আলোচনা, যার করার সে করছেন, যার করার নাহ, তারা করছে না।

কোনো মিম পেজের সমর্থনে এই পিটিশান নাহ!

এই পিটিশান শাস্তি বিষয়ে,

B.F.Skinner বলতেন, একটি বাচ্চা সারাদিন ফোন নিয়ে থাকে পড়াশোনা করে না, 

punishment: যদি তার ফোন কেড়ে নেওয়া হয়, এতে বাচ্চার গোঁ আরও বেড়ে যায়,

reinforcement: বাচ্চাটিকে একটা ঘরে এক ঘণ্টা আটকে রাখা হোক, যেখানে সে সব পাবে ফোন পাবে না, এতে তার গোঁ বাড়বে না, সে বুঝতে শিখবে।

 

মানুষ আটকাতে চেয়েছেন মিম পেজের মেনে না নেওয়া কালচার, রাস্তা বেছে নিয়েছেন, সেই রাস্তায় প্রশাসন পুলিশ পেজের অ্যাডমিনকে প্রায় ক্রিমিনাল তকমা এঁটে দিলেন ছবি তুলে ছেড়ে!

সে লজ্জিত, তার পরিবার, তার সমাজ লজ্জিত, সে কাল আত্মহত্যা করতে পারে না কি? হতাশায় সে মানসিক রুগী হয়ে যায় যদি? যদি মানসিকভাবে ভেঙে পরে শেষ হয়ে যায় তার পড়াশোনা? বেঁচে থাকার ইচ্ছে?

রাস্তা আর কি ছিলো না?
তাকে ডেকে, তার পরিবারকে ডেকে একটা warning কি দেওয়া যেত না?

সারা দেশে হানাহানি, ধর্ম নিয়ে মারামারি, লক্ষ লক্ষ সমস্যা, সেসবের জন্যে মানুষ রুখে দাঁড়াচ্ছে না, বাচ্চাদের মিম পেজ আটকে এইভাবে শাস্তি? এতে আর যাই হোক B.F.Skinner বলেন গোঁ বাড়বে।

ভুলটা না বুঝিয়ে এইভাবে আচরণ সমর্থন করি না, এতে না সে বুঝবে, না আরও হাজার হাজার ছোটো ছেলে মেয়ে,

 

হয় নি কিছুই, কিচ্ছু হয় নি,

যেটা হয়েছে,

১) আরও জেদ চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে,

২) ভয় দেখিয়ে থামানো হচ্ছে, ভয় দেখিয়ে সম্মান আদায় করে নেওয়া হচ্ছে, শিক্ষা দিয়ে নাহ।

 

আজকের সময়ে ছোটোরা কি সত্যি বোঝে সেই পরাধীন ভারতের কথা? তারা বোঝে স্বাধীনতা'র মানে? তারা চাইতে পারে লাইক্স, তারা চাইতে পারে ফুটেজ, তাদের বোঝাবার কেউ নেই?

অ্যাডমিনকে ডেকে নিয়ে একজন ভালো মনঃবিদকে ডেকে কাউন্সেলিং করানো যেত না?
নাহ, সেসব হোলো নাহ!

বরং, তার মনে বোধহয় সমাজের প্রতি, প্রশাসনের প্রতি ঘৃণা জন্মে দেওয়া হোলো।

 

এবার কি হবে?
সে সম্মান করবে তো মনিষীদের?

হাজার হাজার মানুষ, যারা চাইছে ছেলেটিকে মেরে হাত-পা ভেঙে দেওয়া হোক, তারাও মনিষীদের দেওয়া পথনির্দেশ মেনেই চলছেন তো?

তারা আসল সমস্যাগুলো'র সমাধানে এগিয়ে আসবেন তো?


বেত মেরে অঙ্ক শেখানো, আর ক্রিমিনাল ঘরানায় কাউকে তকমা এঁটে লোক শিক্ষে কিন্তু হয় না।

যেভাবে হতে পারতো, সেই দায় নিলো না প্রশাসন? পুলিশ এইভাবে একটা বাচ্চাকে হতাশায় ঠেলে দিলো কারণ সে মনিষীদের অপমান করেছে?

তাকে ভালো করে বোঝালে  একদিন সে হতে পারতো বড় একজন মানুষ, আজ আর সে এই হতাশা কাটিয়ে দাঁড়াতে পারবে তো?

ভয় দেখিয়ে, কিভাবে শিক্ষা দেওয়া হোলো?

সমর্থন করি না,

মিম পেজে যদি নোংরামো হয়, সেটাও যেরকম সমর্থনযোগ্য নাহ, সংশোধনের নামে যদি শাস্তি দেওয়া হয়, সেটাও সমর্থনযোগ্য কোনোমতেই নাহ,

 

যারা, সাইন করবেন, এই শ্লোগানেই করুন,

আসল সমস্যা'র মোকাবিলা করবো, লোকশিক্ষেয় বিশ্বাস করবো, এবং ছেলেটির পাশে থাকবো যাতে সে ভয় পেয়ে নয়, বুঝে মনিষীদের সম্মান করে এবং এটাই চাইবো, প্রশাসন এবং পুলিশের প্রতি যেন তার এবং কারোর অসন্তোষ বা অসম্মান জন্ম না ন্যায়।

 

ধন্যবাদ।



Today: Sarbik is counting on you

Sarbik Mukherjee needs your help with “People: We want people 2 Understand, there is a huge difference between punishment & reinforcement”. Join Sarbik and 109 supporters today.